সন্ধ্যা ৭:০৭
শহীদ সন্তান সুমন জাহিদের মৃত্যু রহস্য উদ্ঘাটনে সুষ্ঠু তদন্তের জোর দাবী : প্রজন্ম’৭১ঈদের ছুটি কাটিয়ে ঢাকা ফিরে পাচ্ছে আগের চেহারাসকালের বৃষ্টিতে মানুষের দেহমনে স্বস্তিআজ আওয়ামী লীগের যৌথসভাআজিজ আহমেদ নতুন সেনাপ্রধানদক্ষিণ কোরিয়াকে হারিয়ে বিশ্বকাপ শুরু সুইডেনেরসৌদিতে আগুনে পুড়ে দুই বাংলাদেশির মৃত্যুকুয়াকাটা সৈকত জুড়ে পর্যটকের উপচে পড়া ভীড়রংপুরে২ নারী ক্রিকেটারকে সংবর্ধকর্মক্ষেত্রে নারী কর্মীদের হয়রানি

ফরিদপুরে আটক মেছোবাঘ, দুটি পালিয়ে যাওয়ায় আতংকে এলাকাবাসী

ফরিদপুর প্রতিনিধি: মাত্র এক দিনের ব্যবধানে এবার একটি মেছোবাঘকে জীবিত আটক করেছে গ্রামবাসী। এসময় আটককৃত মেছোবাঘটির সাথে থাকা আরো দুটি মেছোবাঘ পালিয়ে যায়। বৃহস্পতিবার ভোররাতে ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার বাগাট ইউনিয়নের মিটাইন পূর্বপাড়ার একটি পুকুর থেকে মেছোবাঘটিকে আটক করে গ্রামবাসী।

এর আগে গত মঙ্গলবার ভোররাতে উপজেলার একই ইউনিয়নের ঘোপঘাট দক্ষিন পাড়ায় একটি মেছো বাঘকে আটকের পর পিটিয়ে হত্যা করে এলাকাবাসী। এদিকে একদিনের ব্যবধানে এধরনের ঘটনায় আতংকে রয়েছে এলাকাবাসী। তবে বন বিভাগ ও উপজেলা প্রশাসন থেকে বলা হয়েছে আতংকিত হওয়ার কিছু নেই। মেছোবাঘ মানুষের জন্য ক্ষতিকারক নয়।

জানা যায়, মধুখালী উপজেলার বাগাট ইউনিয়নের মিটাইন পূর্বপাড়া গ্রামের বাসিন্দা গোলাম মোস্তফার বাড়ির পাশ্ববর্তী পুকুর পাড়ে বৃহস্পতিবার ভোররাতে ছুটাছুটির শব্দ শুনতে পায়। ওই সময়ই বাড়ির লোকজন সবাই পুকুর পাড়ে গিয়ে দেখতে পায় তিনটি মেছোবাঘ জরাজরি করছে। এসময় ওই বাড়ির লোকজন চিৎকার দিলে গ্রামবাসী এগিয়ে আসলে মেছোবাঘ তিনটিকে ধরার জন্য তারা দিলে ছোট মেছোবাঘটি পুকুরের পানিতে পড়ে যায়। অন্য বড় একটি ও ছোট একটি মেছোবাঘ দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে গ্রামবাসী পুকুর থেকে ছোট মেছোবাঘটিকে আটক করে। আটক করতে গিয়ে গ্রামবাসীর আঘাতে আহত হয় মেছোবাঘটি। সকালে উপজেলা প্রানী সম্পদ অফিস থেকে চিকিৎসক গিয়ে আহত মেছোবাঘটিতে চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ্য করে। পরে বন বিভাগের কর্মকর্তারা গিয়ে মেছোবাঘটি উদ্ধার করে নিয়ে আসে।

বাগাট ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য আব্দুর রব জানান, মিটাইন পূর্বপাড়া গ্রামের বাসিন্দা গোলাম মোস্তফার বাড়ির পাশ্ববর্তী পুকুর থেকে মেছোবাঘটিকে আটক করা হয়। তিনটি মেছোবাঘের মধ্যে বড় ও ছোট একটি পালিয়ে যায়। তিনি আরো জানান, দুইটি মেছোবাঘ পালিয়ে যাওয়ায় এলাকাবাসী আতংকে রয়েছে।

মধুখালী উপজেলা প্রানী সম্পদ অফিসের সহকারী চিকিৎসক মিজানুর রহমান জানান, খবর পেয়ে মিটাইন গ্রামে গিয়ে আহত মেছোবাঘটিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। চিকিৎসার পর এখন সে সুস্থ্য রয়েছে।

মধুখালী উপজেলা বন কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন জানান, খবর পাওয়ার পর পরই সকালেই বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ মহিউদ্দিন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। সেখান থেকে মেছোবাঘটি উদ্ধার করে নিয়ে আসেন। তিনি আরো জানান, পালিয়ে যাওয়া মেছোবাঘ দুটিকে আটক করতে অভিযান চালানো হবে।

ফরিদপুর বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ মহিউদ্দিন জানান, আটককৃত মেছোবাঘটি উদ্ধার করে মধুখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়েছে। তিনি আরো জানান, মেছোবাঘ মানুষের তেমন কোনো ক্ষতি করে না। সাধারনত মাছ, মুরগী এগুলো খায়। রাতের যেকোন সময়ে মেছোবাঘটিকে নিরাপদ স্থানে ছেড়ে দিয়ে আসা হবে।

মধুখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোস্তফা মনোয়ার বলেন, বন কর্মকর্তা মেছোবাঘটিকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। মেছোবাঘ মানুষের জন্য কোনো ক্ষতিকারক না হওয়ায় বন বিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দ রাতে লোকালয় থেকে দূরে কোথাও অবমুক্ত করে আসবে। তিনি আরো জানান, এনিয়ে এলাকাবাসীর আতঙ্কিত হওয়ার কোনা কারন নেই।

প্রসঙ্গত, এর আগে গত মঙ্গলবার ভোররাতে মধুখালী উপজেলার বাগাট ইউনিয়নের ঘোপঘাট দক্ষিন পাড়ার বাসিন্দা রহমান সেকের বাড়ীতে একটি ছাগল খেতে এলে একটি মেছোবাঘকে পিটিয়ে হত্যা করে এলাকাবাসী। একদিনের ব্যবধানে এধরনের ঘটনায় এলাকাবাসী আতংকে রয়েছে।

Top