রাত ৪:৫০
আগামী মাস থেকে এলএনজির সরবরাহ শুরু: নসরুল হামিদআম নয়, আঁটির উপকারিতা জেনে নিনদিল্লির নেতৃত্ব ছাড়লেন গৌতম গম্ভীরইউটিউব দেখে পার্সেল বোমা বানানো সেই শিক্ষক গ্রেফতারতারেকের বাংলাদেশি নাগরিকত্ব নেই : আইনমন্ত্রীছাত্রীকে এসিড ছোড়ার মামলায় একজনের যাবজ্জীবনপাসপোর্ট নিতে হলে অবশ্যই দেশে আসতে হবেতিনদিনের সফরে অস্ট্রেলিয়া পথে প্রধানমন্ত্রীরাষ্ট্রপতির টুঙ্গিপাড়া সফর স্থগিতবড়পুকুরিয়া কয়লাখনি শ্রমিক ও ক্ষতিগ্রস্তদের সংবাদ সম্মেলন

মেসির হ্যাটট্রিক

প্রথমকথা ডেস্ক: প্রথম একাদশে লিওনেল মেসি কেন? খোদ বার্সেলোনা সমর্থকদের অনেকের মনে ছিল আশঙ্কা মেশানো এই প্রশ্ন। এবং তা যৌক্তিক কারণেই।

তাঁর ফিটনেস নিয়ে ভয় আগে থেকেই। আর্জেন্টিনার জার্সিতে ম্যাচ দুটি খেলতে পারেননি, সেভিয়ার বিপক্ষে খেলেছেন শেষ আধঘণ্টা, রোমার বিপক্ষে শুরু থেকে খেললেও সহজাত বিধ্বংসী রূপে দেখা যায়নি। মৌসুমের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশটাই যখন সামনে পড়ে আছে, তখন পরশু লেগানেসের বিপক্ষে বার্সেলোনার খেলায় মেসির বিশ্রামে থাকাটাই যে মনে হচ্ছিল সবচেয়ে যৌক্তিক!

কিন্তু মেসি খেললেন। এবং ফিরলেন নিজের শ্রেষ্ঠত্বে। দুর্দান্ত হ্যাটট্রিকে দূর করে দিলেন ফিটনেস নিয়ে সব শঙ্কা। বার্সাকে জেতালেন ৩-১ গোলে। তাতে লা লিগায় টানা অপরাজেয় থাকার রেকর্ডটা টেনে নিল ৩৮তম ম্যাচে। রেকর্ডে ভাগ বসাল ১৯৭৮-৭৯ ও ১৯৭৯-৮০ মৌসুমের রিয়াল সোসিয়েদাদের। সামনের ম্যাচে তা নিজেদের করে নেওয়ার সুযোগ বার্সেলোনার। শুধু তা-ই নয়, লিগের শেষ সাতটি ম্যাচ না হারলে প্রথম দল হিসেবে অপরাজেয় থেকে লা লিগার মৌসুম শেষ করার রেকর্ড হয়ে যাবে দলটির।

এত সব রেকর্ডে সবচেয়ে বড় অবদান যে মেসির, তা না বললেও চলছে। তাঁর পরশুর ম্যাজিক তাই সমর্থকদের আশ্বস্ত করবে নিঃসন্দেহে। লেগানেসের বিপক্ষে প্রথম গোল করেন ২৭তম মিনিট; ফ্রি কিকে। ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে এতে খুব দক্ষ ছিলেন না, কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বিস্ফোরক হয়ে উঠছেন ক্রমশ। ২০১১-১২ ও ২০১৫-১৬ মৌসুমে ফ্রি কিকে সর্বোচ্চ চারটি করে গোল করেছিলেন। পরশু বার্সার জার্সিতে করলেন এ মৌসুমের সপ্তম গোল। এর মধ্যে লা লিগাতেই ছয়টি। ২০০৬-০৭ মৌসুমে রোনালদিনহোর লিগে ফ্রি কিক থেকে করা গোলের সমান লক্ষ্যভেদ হলো মেসির।

ফিলিপে কৌতিনহোর পাস থেকে তাঁর দ্বিতীয় গোল ৩২তম মিনিটে। আর ৮৭তম মিনিটে পূর্ণ করেন হ্যাটট্রিক। তাতে ‘পিচিচি’ লড়াইয়ে মেসি এগিয়ে গেলেন অনেকটা। ২২ গোলে থাকা ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ও লুইস সুয়ারেসের চেয়ে সাত গোল এগিয়ে তিনি। শুধু তা-ই নয়, লিগে ২৯ গোল করে ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শ্যুর রেসে তিনি ছুঁয়ে ফেললেন লিভারপুলের মো সালাহকে। আর পরশুর জয়ে বার্সেলোনাও লিগ শিরোপা পুনরুদ্ধারের পথে এগিয়ে গেল আরেক ধাপ। ৩১ ম্যাচে ৭৯ পয়েন্ট তাদের। দ্বিতীয় স্থানে থাকা আতলেতিকো মাদ্রিদের চেয়ে ১২ এবং তৃতীয়তে থাকা রিয়াল মাদ্রিদের চেয়ে ১৬ পয়েন্টে এগিয়ে তারা। এটি অবশ্য কালকের মাদ্রিদ-ডার্বির আগ পর্যন্ত।

টানা ৩৮ ম্যাচ অপরাজিত থেকে সোসিয়েদাদের রেকর্ডে ভাগ বসানো বার্সার কোচ এর্নেস্তো ভালভের্দে স্বভাবতই আনন্দিত, ‘এটি ঐতিহাসিক এক রেকর্ড। কিভাবে তা অর্জন করলাম, তা ঠিক ব্যাখ্যা করতে পারব না। তবে আমরা সব সময় চেষ্টা করি আর মনোযোগ দিই পরের ম্যাচটি জয়ের।’ পরশুর জয়ে লিগ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পথে অনেকখানি এগিয়ে গেলেও এ নিয়ে ভাবতে রাজি নন বার্সা কোচ, ‘যখনই নিজেদের চ্যাম্পিয়ন ভাবা শুরু করব, তখনই ভুল করা শুরু হয়ে যাবে। এখনো আমরা কিছু জিতিনি আর না জেতার আশঙ্কাও পুরোপুরি যায়নি। আমাদের তাই শেষ পর্যন্ত লড়াই করতে হবে।’

পরশু লা লিগার অন্যান্য ম্যাচের মধ্যে সেল্তা ভিগোর কাছে বিস্ময়করভাবে ০-৪ গোলে হেরে গেছে সেভিয়া। এ ছাড়া রিয়াল বেতিস ২-০ গোলে এইবারকে, আলাভেস ২-০ গোলে গেতাফেকে হারিয়েছে। কাল লেভান্তে ২-১ গোলে হারিয়েছে লাস পালমাসকে।

সূত্র: এএফপি

Top