রাত ৯:১৯
পবিত্র আশুরা শুক্রবারখালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে মামলার কার্যক্রম চলবেএকজন নারী দেহরক্ষীর গোপন জীবনদুই রাষ্ট্রদূতের রাষ্ট্রপতির কাছে পরিচয়পত্র পেশসুস্থ চোখে পৃথিবীর সৌন্দয্য উপভোগ করুনটাইগারদের ভাবনায় এখন সুপার ফোরমালয়েশিয়ায় বিষাক্ত মদপানে বাংলাদেশিসহ ২১ জনের মৃত্যুতিন দিনের সফরে রংপুর গেলেন এরশাদ‘যৌনতায় অপটু’ ট্রাম্প; ফের বোমা ফাটালেন স্টর্মিসংসদে ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল ২০১৮ পাস

সহিংসতা বন্ধের আহ্বান লঙ্কান ক্রিকেটারদের

ডেস্ক: শ্রীলংকায় সাম্প্রদায়িক সহিংসতা দিনকে দিন বাড়ছেই। পরিস্থিতি সামলাতে দেশটিতে জারি হয়েছে ১০ দিনের জরুরি অবস্থা, বন্ধ রাখা হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমও। এবার সহিংসতা থামাতে দেশটির সব সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন শ্রীলংকার সাবেক চার ক্রিকেটার।

এমতাবস্থায় শ্রীলংকায় চলছে নিদাহাস ট্রফি। এতে স্বাগতিকরা ছাড়াও অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশ ও ভারত। সহিংসতা তাই বেশ ভাবাচ্ছে ক্রিকেট অঙ্গনকে। এরই মধ্যে দাঙ্গা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন ক্রিকেটাররা।

শ্রীলংকার সাবেক ক্রিকেটার কুমার সাঙ্গাকারা তার ফেসবুকে একটি ভিডিও পোস্ট করে বলেন, ‘শ্রীলঙ্কার একটি মানুষও ধর্ম কিংবা সাম্প্রদায়িকতার যাঁতাকলে পিষ্ট হবে না। আমরা এমন একটি জাতি যেখানে সবাই ঐক্যবদ্ধ। ভালোবাসা, বিশ্বাস এবং গ্রহণযোগ্যতাই আমাদের স্লোগান। দাঙ্গা ও বর্ণবৈষম্যের কোনো স্থান আমাদের মাটিতে নেই। আপনারা থামুন এবং সবাই কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দাঁড়ান।’

আরেক টুইট বার্তায় মাহেলা জয়াবর্ধনে বলেন, ‘আমি সাম্প্রতিক সহিংসতার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই এবং এর সঙ্গে জড়িতদের বিচার চাই। আমি ২৫ বছর ধরে চলা একটি গৃহযুদ্ধের মধ্যে বড় হয়েছি, তাই আর চাই না পরের প্রজন্মও তেমন একটি অবস্থার মধ্য দিয়ে যাক।’

দাঙ্গা বন্ধ করে সবাইকে একসঙ্গে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন সনাথ জয়াসুরিয়াও। তিনি বলেন, ‘শ্রীলঙ্কায় সহিংসতার ঘটনা দেখে ঘৃণা ও হতাশ লাগছে। আমি দৃঢ়ভাবে এর নিন্দা করি এবং জড়িত অপরাধীদের ন্যায়বিচারের আওতায় আনার আহ্বান জানাই। আমি শ্রীলংকার জনগণকে এই কঠিন সময়ে একসাথে থাকার আহ্বান জানাচ্ছি।’

গেরিলা যুদ্ধের কারণে দীর্ঘ তিন দশক রক্ত ঝরেছে শ্রীলংকায়। সেই যুদ্ধের অবসান হলেও এবার নতুন করে ভাবাচ্ছে এই সাম্প্রদায়িক সহিংসতা। সেদিকে ইঙ্গিত করে দেশটির জাতীয় দলের অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস বলেন, ‘আমরা শ্রীলঙ্কানরা তিন দশক একটা তিক্ত অভিজ্ঞতা ভোগ করেছি। এসময় অনেক প্রিয়জনকে হারিয়েছি। যার ফলে অনেক স্বপ্ন বিলীন হয়েছে। আমার পরিবারসহ অনেকেই রাস্তায় হাঁটতে ভয় পাচ্ছে এবং ঘোর অনিশ্চয়তা মধ্যে রয়েছে।’ সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া।

Top