রাত ৩:২২
‘দহন’ থেকে বাদ পড়লেন বাঁধন!সাফল্য গাঁথা: ফরিদপুরের একজন অদম্য রোকেয়ার গল্প‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১১বার কাউন্সিল নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক ফল ঘোষণা ২৬ মেএইচবিআরআই খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদনহা-মীম গ্রুপের এমডিকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদমুক্তিযোদ্ধার অসম্মানজনক দাফনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা : মোজাম্মেল হকরাজীবের দুই ভাইকে ক্ষতিপূরণের আদেশ স্থগিতযুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা, এতিম ও আলেম-ওলামাদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ইফতাররাশিয়ায় দাবানলে ২৩ হাজার হেক্টর বনাঞ্চল ধ্বংস

শ্রীনগরে আড়িয়ল বিলের কৃষি জমি মাটি কেটে নিচ্ছে একশ্রেীণির অসুধ ব্যবসায়ী

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি : মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে ইটভাটায় ইট তৈরির জন্য বিক্রি হচ্ছে আড়িয়াল বিলের ফসলি জমির মাটি। একশ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী কৃষকদের অজ্ঞতার সুযোগ নিয়ে স্বল্পমূল্যে জমির উবর্র মাটি জোর করে মাটি কেটে বিক্রি করছেন। এতে জমির উর্বতা শক্তি নষ্ট হয়ে ফসল উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। উপজেলার আড়িয়ল বিলের ও বাঘরা উনিয়নের কাঠালবাড়ি , রুদ্রপাড়া ,কামারগাঁও ভ্যাগকুল ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে, ফসলি জমির মাটি জোর করে কেটে বিক্রি করে ইটভাটায় । আড়িয়ণ বিলে সাড়ি সাড়ি মাটি কেটে টিলার ভানিয়ে রাখছে। বর্ষার সময় এই মাটির টিলা ইট ভাটায় বিক্রি করা হবে। আবাদি জমির ওপরের অংশ এক থেকে ১৫-২০ ফুট গর্ত করে কেটে নেওয়া হচ্ছে। এভাবে মাটি বিক্রি অব্যাহত থাকলে একসময় ফসল উৎপাদনে বিপর্যয়ের আশঙ্কা রয়েছে। সরেজমিনে দেখা গেছে, বাঘরা ইউনিয়নে কাঠালবাড়ি মৌজায় করম আলী শারং, মোকলেছ , ওহাব,ছাইদ হাজী মো.আনোয়ার আলী লিজ ও খাস সম্পত্তির জমি ও ফসলি জমির মাটি কেটে ইটভাটায় বিক্রি করছে মামুন বাহিনির গংরা। তাদের বাহিনির ভয়ে কেউ মুখ খুলতে চায় না। কাঠালবাড়ি মাটি বেচাকেনার সঙ্গে জড়িত মামুন ,মজিদ মোম্বার,শাহিনের এই সেন্ডিকেট তারা অন্যর মাটি জোর করে কেটে বিক্রয় করে। এই বিষয় মামুন বলেন, আমার খমতা আছে আমি মাটি কাটি । আমরা কোনো সরকারি জায়গা কাটি না, রেকর্ডকৃত মালিকানা জায়গা ফুট হিসেবে কিনে নিয়ে যাদের মাটির প্রয়োজন তাদের কাছে বিক্রি করি। অনুসন্ধানে আরও জানা গেছে, শ্রীনগর আড়িয়াল বিলের মাটি-লুটেরা,চাঁদাকাজ ও দস্যুদের অত্যাচাওে অতিষ্ঠ বিলপাড়ের বাসিন্দারা । চাহিদামতো চাঁদা না দিয়ে কৃষক তার কষ্টার্জিত ফসল পর্যন্ত ঘওে তুলতে পারছেন না। মাটিদস্যুদের তান্ডবে বিলীন হতে চলেছে বড় বড় ডাঙ্গার পাড়।
শ্রীনগর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সৈয়দ ফয়েজুল ইসলাম বলেন, কারও কৃষি জমি জোর করে কেটে নিয়েলে ও ফসলি জমির মাটি কাটার সংবাদ অভিযোগ পেলেই আইনগত ব্যবস্থা নেব। আইন ও নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠান থাকা সত্ত্বেও কিছুতেই কমছে না কৃষি জমির মাটি কাটা ।

Top