সকাল ৭:০৩
12-12-2017Issueওয়ান প্লানেট শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে প্যারিসের পথে প্রধানমন্ত্রীশহীদ সাংবাদিক সিরাজুদ্দীন হোসেনের অপহরণ দিবস আজটাঙ্গাইল হানাদার মুক্ত দিবস আজরাষ্ট্রপতি ওআইসির সম্মেলনে যাচ্ছেন আজওয়ান প্লানেট শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে প্যারিসের পথে প্রধানমন্ত্রী11-12-2017Issueনিরাপত্তা ঝুকির চিঠি উপেক্ষাঃ উত্তরা নাটোর টাওয়ারে ভয়াবহ অগুন10-12-2017 issueবিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে আশুলিয়ায় স্বেচ্ছাসেবক লীগের যৌথ আলোচনা সভা

চীনে বন্ধ হলো পুরুষের প্রতি ‘আনুগত্য’ শেখানোর প্রতিষ্ঠান

ডেস্ক: চীনের পারিবারিক ও সামাজিকভাবে এখনো পুরুষতন্ত্রের আধিপত্য রয়েছে। সমগ্র অর্থনীতিতে নারীদের বেশ পাকাপোক্ত অবস্থান থাকলেও সেটিকে দেশটির নারী মুক্তির বড় অর্জন বলে মেনে নেয়নি পুরুষতন্ত্র। ফলে পরিবারের পুরুষদের প্রতি আনুগত্য প্রদর্শন করতে সেখানে শতাব্দী থেকে শতাব্দী ধরে পরিবার থেকেই নারীদের শেখানো হয়।

এমনকি দেশটিতে পুরুষদের আনুগত্য শেখায় এরকম কিছু প্রতিষ্ঠানও গড়ে উঠতে দেখা গেছে। দেশটির ঐতিহ্য শিক্ষা দেওয়ার নামে চীনে সাম্প্রতিক সময়ে এ ধরনের কিছু প্রতিষ্ঠান গজিয়েছে।

এরকম প্রতিষ্ঠান গুলোতে  নারীদের পুরুষদের প্রতি অনুগত হওয়ার শিক্ষা দেওয়া হয় বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানা গেছে। এই স্কুলে মেয়েদের বাবা, স্বামী এবং পুত্রের প্রতি শর্তহীন আনুগত্যে উৎসাহিত করা হতো।

ফুশুন স্কুল অব ট্র্যাডিশনাল কালচার নামে এরকম একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিয়েছে চীনের কর্তৃপক্ষ। চীনের শিক্ষা বিভাগ বলছে, বন্ধ করে দেওয়া ঐ প্রতিষ্ঠানটি চীনা সমাজের ‘ঐতিহ্যগত গুণাগুণ বা মূল্যবোধ’ শেখার যে কথা বলতো তা ‘সমাজতান্ত্রিক মূল্যবোধের’ পরিপন্থী।

অনলাইনে প্রকাশিত এক ভিডিওতে দেখা গেছে, শিক্ষকরা সেখানে নারীদের পরামর্শ দিচ্ছেন যে পুরুষদের হাতে মার খেলেও তারা যেন প্রতিরোধ না করে। একজন শিক্ষককে বলতে শোনা যাচ্ছে, তোমাদের স্বামীরা যা করতে বলবে, তোমরা সাথে সাথে তা মেনে নেবে।

একটি ফুটেজে এক শিক্ষক নারীদের সাবধান করছেন  তারা যদি তিন জনের বেশি পুরুষের সাথে যৌনকর্ম করেন তাহলে বিষক্রিয়ায় তাদের মৃত্যু হবে।

ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে ফুশুন স্কুল অব ট্র্যাডিশনাল কালচার নামে ঐ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা নারীদের বলছেন ক্যারিয়ার তৈরির জন্য মরিয়া না হয়ে তারা যেন সংসারে অনুগত হয়ে জীবনযাপন করেন।

দেশটির সরকারি কর্তৃপক্ষ এ ধরনের প্রতিষ্ঠান খুঁজে বের করার নির্দেশ দিয়েছে। অন্যদিকে এ শিক্ষাকে সমাজতন্ত্রের শিক্ষা বলে ফুশুন শিক্ষা কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, যারা সমাজতন্ত্রের মূল শিক্ষা লঙ্ঘন করছে তাদেরকে ঠেকাতে হবে।

Top