রাত ১১:১৯
জাতীয় পার্টির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ শুরুভারত-বাংলা ফ্রেন্ডশীপ অ্যাওয়ার্ড ২০১৮আজকের সংখ্যা ২0/১১/১৮নির্বাচন বাংলাদেশের জনগণ ও রাজনৈতিক দলের বিষয়: হর্ষ বর্ধন শ্রিংলাশীতেও ব্যবহার করতে পারেন সানগ্লাসমাহমুদ আলীকে ফোন কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রীরটমটমের ধাক্কায় সুরমার প্রাণ গেলবিশ্ব টয়লেট দিবস আজআগামী ২১ ফেব্রুয়ারি ৯ ফাল্গুনবিএনপির দ্বিতীয় দিনের সাক্ষাৎকারে ভিডিও কনফারেন্সে রয়েছেন তারেক

‘বাংলাদেশে গত এক বছরে নারী ও কন্যাশিশু ধর্ষণের সংখ্যা বেড়েছে’ -বলছে মহিলা পরিষদের রিপোর্ট

ডেস্ক: বাংলাদেশে চলতি বছর নারী ধর্ষণ এবং কন্যাশিশু নির্যাতনের ঘটনা গত বছরের তুলনায় বেড়েছে বলে দাবি করছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ।

এই বিষয়ে সংস্থাটি আজ একটি রিপোর্ট প্রকাশ করে বলেছে, ২০১৭ সালে প্রথম ১০ মাসে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ১ হাজার ৭৩৭টি, আর গত বছর অর্থাৎ ২০১৬ সালে এ সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৪৫৩টি।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সভাপতি আয়েশা খানম বিবিসি বাংলাকে বলেন প্রতি বছরেই চার মাস পরপর তারা নারীর ওপর যৌন অপরাধ পরিস্থিতি সংক্রান্ত একটি রিপোর্ট তৈরি করেন।

ধর্ষণ, ধর্ষণের পর হত্যা, গণধর্ষণ, হুমকি বা যৌন হয়রানির মতো অপরাধগুলোর তথ্য সংগ্রহের জন্য তারা ১৪টি সংবাদপত্র এবং তাদের শাখাগুলো থেকে পাওয়া তথ্য ব্যবহার করেন।আয়েশা খানম বলেন, এ ধরণের সব অপরাধের সংখ্যাই বাড়ছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে ২০১৬ সালে ধর্ষণের সংখ্যা ছিল ৭০৫ তাদের হিসেব মতে। ২০১৭ সালে এ সংখ্যা ৮৩৪-এ উঠেছে।”গণধর্ষণের সংখ্যা ২০১৬তে ছিল ১৩৯ আর এ বছর সেটা ১৯৩তে উঠেছে।”

এ ধরণের অপরাধ বাড়ার পেছনে প্রধান কারণ হিসেবে পিতৃতান্ত্রিক বা পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতাকেই প্রধান বলে চিহ্নিত করেন আয়েশা খানম।তার কথায়, এ ধরণের যৌন অপরাধ দমনের জন্য কঠোর আইন থাকা সত্বেও এটা বাড়ছে।

সুত্র: বিবিসি বাংলা

Top