সকাল ১১:৩৭
আজকের সংখ্যা ১৯/১১/১৮ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তারেক সাক্ষাৎকার নিচ্ছেনথার্টিফার্স্ট নাইটে কোনো অনুষ্ঠান নয় : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীআজকের সংখ্যা ১৮/১১/১৮দিনাজপুরে তিনদিন ব্যাপী প্রাণ চিনিগুড়া চাল নবান্ন উৎসব পালিতআজকের সংখ্যা ১৫/১১/১৮সোয়া দুই কোটি টাকায় বিক্রি হলো আত্মহত্যার চিঠিপালিত হচ্ছে বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসনির্বাচন নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কূটনীতিক ব্রিফ বৃহস্পতিবারচাঁপাইনবাবগঞ্জে সম্প্রীতি বাংলাদেশের সমাবেশ

হাজার হাজার মানুষ শেষ ধাপের ক্যান্সারে আক্রান্ত

ডেস্ক: ম্যাকমিলান ক্যান্সার সার্পোট বলছে তারা এক নতুন গবেষণায় পেয়েছে ইংল্যান্ডে হাজার হাজার মানুষ স্টেজ ফোর বা শেষ ধাপের ক্যান্সারে আক্রান্ত।

ইংল্যান্ডের মত উন্নত দেশে এত মানুষ ক্যান্সারে আক্রান্ত কেন হচ্ছে এবং কেনই বা একেবারে জীবনের শেষ মুহূর্তে এসে টের পাচ্ছে?

ম্যাকমিলান ক্যান্সার সার্পোট বলছে নতুন চিকিৎসার কারণে এটা কমে এসেছিল কিন্তু তারা সতর্ক করে বলছে স্টেজ ফোর ক্যান্সার নিয়ে দীর্ঘদিন বেঁচে থাকাটা এখন নতুন এক জটিলতা তৈরি করেছে।

তেমনি একজন এমা ইউং

এমা ইউং এর বয়স ৩৯ বছর। যখন তাঁর বয়স ৩৫ তখন স্তন এবং হাড়ের ক্যান্সার ধরা পড়ে।

তিনি বলছিলেন ” ক্যান্সার হয়েছে সেটা না জানাটা সবচেয়ে কঠিন অবস্থা”।

“যখন আপনি পরীক্ষা বা স্ক্যান করাবেন তখন থেকে শুরু যতক্ষণ না পর্যন্ত রেজাল্ট দিচ্ছে তখন পর্যন্ত মনের ওপর যা চলতে থাকে তা অবর্ণনীয়। আপনি ঐ সময়টাকে ‘স্ক্যানজাইটি’ বলতে পারেন” বলছিলেন এমা।

২০১৪ সালে ডাক্তার তাঁর ভুল পরীক্ষা করে। এতে করে ক্যান্সার আরো কিছুটা ছড়িয়ে পড়ার সময় পায়। পরে জানা যায় তিনি স্তন এবং হাড়ের ক্যান্সারের আক্রান্ত।

স্টেজ ফোর এমন একটা অবস্থা যখন রোগটা শরীরের এক অংশ থেকে আরেক অংশে দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে থাকে। এবং বেশির ভাগ সময় নিরাময় করা যায় না।

আগে স্টেজ ফোর রোগির হাতে খুব কম সময় থাকতো কিন্তু ম্যাকমিলান ক্যান্সার সার্পোট বলছে নতুন গবেষণার তথ্য বলছে নতুন উন্নত মানের চিকিৎসার মাধ্যমে “আগের তুলনায় বেশি চিকিৎসাযোগ্য এবং অন্যান্য দুরারোগ্য রোগের মত পরিস্থিতি সামাল দেয়া যাবে”।

চিকিৎসা থাকলেও নতুন সমস্যা

যদিও ম্যাকমিলান ক্যান্সার সার্পোট বলছে স্টেজ ফোর ক্যান্সার নিয়ে দীর্ঘদিন বেঁচে থাকা সম্ভব কিন্তু এতে করে নতুন একটা জটিলতা তৈরি হয়েছে।

এন্ড অব লাইফ কেয়ার নামে একটি দাতব্য প্রতিষ্ঠানের উপদেষ্টা এডরিন বেটলি বলছেন ” এটা অবশ্যই ভাল খবর কিন্তু দুরারোগ্য এই রোগটির সাথে দীর্ঘদিন বসবাস করা সত্যিই কঠিন পরিস্থিতি”।

তিনি বলছিলেন ” শারীরিক কষ্টের সাথে সাথে বিভিন্ন হাসপাতালে যাওয়া, ডাক্তারদের সময় নেয়া, টেস্ট করা এছাড়াও মানসিক, আবেগের জায়গাটাতো আছেই। অনিশ্চিত ভবিষ্যতের কথা ভেবে একজন রোগি এমনিতেই মানসিকভাবে অসম্ভব ভেঙ্গে পড়েন”।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

Top