রাত ৪:৪৯
২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ ইং মুদ্রণ সংস্করণআজ মহান একুশে, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসঅরণ্যের অধিকারআমার মা২১ গুণীকে একুশে পদক দিলেন প্রধানমন্ত্রীবৈঠকে খালেদার আইনজীবীরা, আপিল মোকাবেলায় প্রস্তুত দুদকঅস্ত্র বিক্রি নিয়ে অবস্থান বদলাচ্ছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প?বিএনপি আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজ রাজনৈতিক দল : ওবায়দুল কাদেরমধু উৎপাদন বৃদ্ধি ও মৌমাছির নতুন প্রজাতি উদ্ভাবনে গবেষণা করুন : কৃষিমন্ত্রীসাবেক সংসদ সদস্য ইউসুফের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

জার্মানিতে হাতির দাঁতের মূর্তি ও বাদ্যযন্ত্রের সন্ধান

ডেস্ক: জার্মানির বরফ যুগের গুহায় হাতির দাঁতের তৈরি মানবজাতির প্রাচীনতম রূপ আর বাদ্যযন্ত্র খুঁজে পেয়েছেন প্রত্নতত্ত্ববিদরা। ইউনেস্কোর তালিকায় ঠাঁই পাওয়া এ গুহায় পাওয়া সামগ্রি মানুষের সৃষ্টিশীলতার আদিতম প্রকাশ বলে মনে করা হচ্ছে।

ভিনাস অফ হোহলে ফেলস। অনেক যত্নের সাথে হাতির দাঁত খোদাই করে তৈরি হয়েছে ছোট্ট এ মূর্তি। এটির বয়স প্রায় চল্লিশ হাজার বছরেরও বেশি। ব্যাডেন ওয়ারটেমবার্গের একটি গুহায় পাওয়া যায় মুর্তিটি। ১৯ শতাব্দী থেকে এখানে ছয়টি গুহার সন্ধান মিলেছে।

পাওয়া গেছে শতাধিক ব্যক্তিগত গয়না, অন্তত আটটি বাদ্যযন্ত্র আর চল্লিশটিরও বেশি হাতির দাঁতে তৈরি মূর্তি। ২০০৮ সালে হাতির দাঁতের তৈরি চল্লিশ হাজার বছরের নারীর মুর্তিটি আবিষ্কার করেন প্রত্নতত্ত্ববিদ অধ্যাপক নিকোলাস কনার্ড ও তাঁর দল।

মিউজিয়াম অব প্রিহিসটোরি ব্লাউবয়রেন পরিচালক অধ্যাপক নিকোলাস সি কনার্ড জানান, দুটি উপত্যকায় ছয়টি গুহা আছে। গুহাগুলো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণ এখানে সবচেয়ে বেশি দামি আর পুরোন শিল্পকর্ম ও বাদ্যযন্ত্র আছে।

এছাড়া আছে ঐ সময়ের সাংস্কৃতিক বিকাশের অন্যান্য পরিবর্তনের বিষয়গুলোও। ফলে এগুলোর সার্বজনীন মান আছে। তাই ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজে স্থান পাওয়ার যোগ্য।

ইতিহাসে উন্নত যোগাযোগ প্রিমাপের ক্ষেত্রে প্রতীকী শিল্পকে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হয়।

মিউজিয়াম অব প্রিহিসটোরি ব্লাউবয়রেন নির্বাহী পরিচালক ড. স্টেফেনি কোবেল জানান, ভিনাস অফ হোহলে ফেলস মানবজাতির সবচেয়ে পুরোন রূপ। হাতির দাঁতের তৈরি মূর্তির বয়স চল্লিশ হাজার বছর। দক্ষিণ জার্মানির পালিয়েওলিথিক যুগের শিল্পকর্মের ধাঁচে তৈরি এটি।

এর কোন মাথা নেই তবে একটি আংটা আছে এটা হয়তো রক্ষাকবচ হিসেবে পরা হতো। এটা একজনেরই ছিল এটা আসলে একটা গয়না।

পোল্যান্ডের ক্রাকোতে ২ জুলাই থেকে ১২ জুলাই বৈঠক করছে ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ কমিটি। এতে বিশ্বের আরও ২৫টি সাংস্কৃতিক স্থানকে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

Top